মঠবাড়িয়ায় পৌরশহরের পুকুর ঘাটের জমি দখলের প্রতিবাদে বাজার বণিক সমিতির সংবাদ সম্মেলন - অনলাইন মঠবা‌ড়িয়া সেবা

শিরোনাম

"সত্য প্রকা‌শে আমরা"

Post Top Ad

Wikipedia

সার্চ ফলাফল

২০ মার্চ, ২০২০

মঠবাড়িয়ায় পৌরশহরের পুকুর ঘাটের জমি দখলের প্রতিবাদে বাজার বণিক সমিতির সংবাদ সম্মেলন

  • মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি ঃ

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া পৌর শহরের জনসাধাণের ব্যবহার্য পুকুর ঘাটের জমি অবৈধ দখলের প্রতিবাদ ও উচ্ছেদের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন মঠবাড়িয়া বাজার বণিক সমিতির নেতারা। আজ বৃহস্পতিবার রাতে মঠবাড়িয়া প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বণিক সমিতির নেতারা ও ব্যবসায়িরা উপস্থিত ছিলেন।
মঠবাড়িয়া বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সামসুণল আহসান খোকা মিয়া সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।
এসময় বণিক সমিতির সভাপতি মো. সামসুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম কামাল, সহ সভাপতি গৌতম কর্মকার, ব্যবসায়ি সদস্য মো. মঞ্জু মিয়া, আমির হোসেন, মো. আনোয়ার হোসেন, মাকসুদ খান, তুষার আহম্মেদ, মো. জামাল আকন , , ইসমাইল আকন, উত্তম কর্মকার ও স্বর্ণশিল্পী সঞ্জয় মালাকর সহ বন্দর ব্যবসাযিরা উপস্থিত ছিলেন।
লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, মঠবাড়িয়া পৌর শহরে বড় ধরনের কোন পুকুর ও বিকল্প জলাধার না থাকায় অগ্নিকাণ্ডের সময় ফায়ার সার্ভিস এর অগ্নি নির্বাপনে চরম পানি সংকট দেখা দেয়। ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারি মঠবাড়িয়ার কাপুড়িয়া পট্রিতে ভয়বহ অগ্নিকাণ্ডে ব্যবসায়িরা চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়। মঠবাড়িয়া বণিক সমিতি জনস্বার্থে শহরের কাপুড়িয়া পট্রিতে বর্তমান মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স সংলগ্ন খাস পুকুরের পানি সহজলভ্য ব্যবহারের জন্য একটি ঘাটলা নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। ওই ঘাটলা নির্মাণের জন্য প্রশাসনকে অবহিত করে সরকারি জমির সাড়ে তিনফুট জমি ঘাটলা নির্মাণের জন্য ফাঁকা রাখা হয়। পরে পিরোজপুর জেলা পরিষদে বণিক সমিতি ঘাটলা নির্মাণের জন্য একটি প্রকল্প দাখিল করে।
এদিকে ওই সাড়ে তিনফুট ঘাটলার জমির পাশে দোকান মালিক মো. নূরুজ্জামান তালুকদার তার দোকান ঘরের সাথে মিলিয়ে অবৈধভাবে দখল করে নেন।
ব্যবসায়িরা অভিযোগ করেন অবৈধ জমি দখলকারিকে উচ্ছেদের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য, পৌরসভার মেয়র, ও সহকারি কমিশনার(ভূমি) বরাবরে অভিযোগ দিয়ে কোনও প্রতিকার মেলেনি।
সংবাদ সম্মেলনে ব্যবসায়ি নেতারা পুকুরের ঘাটলার জমি ব্যবসায়ি ও জনস্বার্থে দখল মুক্ত করার দাবি জানান।
মঠবাড়িয়া বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. শামসুল আলম সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা দেন আগামী ২৮ মার্চের মধ্যে প্রশাসন অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ না করলে মঠবাড়িয়া বন্দরের সকল ব্যবসায়িরা সম্মিলিতভাবে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি গ্রহণ করবেন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন