মঠবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধিসহ আহত ২ - মঠবাড়িয়া সেবা ডটকম - অনলাইন মঠবা‌ড়িয়া সেবা

শিরোনাম

"সত্য প্রকা‌শে আমরা"

Post Top Ad

Wikipedia

সার্চ ফলাফল

১৫ মার্চ, ২০২০

মঠবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধিসহ আহত ২ - মঠবাড়িয়া সেবা ডটকম

মঠবাড়িয়া স্টাফ রিপোর্টার (মাসুম ফরাজী) : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মাছ ধরার জাল ফেলাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধি নাসির জমাদ্দার (৩৫) ও তার শ্যালক সোহাগ হাওলাদার (২৫) গুরুতর আহত হয়েছেন। হামলাকারিরা সোগাগের বাম হাত হাতুরিপেটা করে ভেঙে দিয়েছে। নাসির জমাদ্দার উপজেলার টিকিকাটা পাঁচশত কুড়া গ্রামের মৃত আলতাফ জমাদ্দারের ছেলে ও সোহাগ হাওলাদার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের ৪.৫.৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্য আমেনা আলতাফ এর ছেলে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪ দিন চিকিৎসা শেষে অংশিক সুস্থ্য হয়ে গতকাল বিকেলে তারা বাড়ি ফিরেছেন।

আলতাফ হাওলাদারসহ স্থানীয় সোনাখালী বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, আলতাফ হাওলাদারের জামাতা দৃষ্টি প্রতিবন্ধি নাসির জমাদ্দার সোনাখালী বাজার সংলগ্ন পশুরিয়া গ্রামে ওয়াপদা স্লুইজগেটে জাল ফেলে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। সম্প্রতি তার চাচা শশুর আলতাফ হাওলাদারের মেঝভাই সোহরাফ হোসেন কালু দৃষ্টি প্রতিবন্ধি নাসিরকে মাছ ধরা থেকে বিরত থাকতে বলে। ওই স্লুইজগেটে মাছ ধরার ব্যবৎ ইতিপূর্বে কালুকে ৫ বছরের চুক্তিতে ১০ হাজার টাকা দেয় দৃষ্টি প্রতিবন্ধি নাসির। কিন্তু সোহরাফ হোসেন কালু ভাতিজি জামাতার কাছে আরও ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। এ নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হলে সম্প্রতি কালু ভাতিজি জামাতা দৃষ্টি প্রতিবন্ধি নাসিরকে মারধর করে। এঘটনায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধি নাসির মঠবাড়িয়া থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

এদিকে সোহরাফ হোসেন কালু থানায় লিখিত অভিযোগ ব্যপারে তার ভাই আলতাফ হাওলাদার সন্দেহ করে। গত বুধবার সন্ধার পরে সোহরাফ হোসেন কালু, জলিল,খলিল সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের সহযোগিতা সোনাখালী বাজারে প্রকাশে জুয়েলের চায়ের দোকানে বসে থাকা তালতাফ হাওলাদারের হাতুরি দিয়ে ওপর হামলা চালয়। এসময় তার ছেলে সোহাগ হাওলাদার এগিয়ে আসলে হাতুরি পেটা করে সোহাগের বাম হাত ভেঙে দেয়।

স্থানীয়রা আরও জানান, সোহরাফ হোসেন কালুর চাচাতো ভাই ও সঙ্গী জলিলের হাতুরির একটি আঘাত  কালুর মাথায় পরে। এতে সোহরাফ হোসেন কালু আহত হয়। কালু এ আঘাতটাকে পুঁজি করে আলতাফ হাওলাদার গংদের হয়রানি করছে। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।
এব্যপারে সোহরাফ হোসেন কালুর বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। এঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে আলতাফ হাওলাদার জানান।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন