কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের পক্ষ থেকে সনাতনী সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীর সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। - অনলাইন মঠবা‌ড়িয়া সেবা

শিরোনাম

"সত্য প্রকা‌শে আমরা"

Post Top Ad

Wikipedia

সার্চ ফলাফল

২৮ ফেব, ২০২০

কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের পক্ষ থেকে সনাতনী সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীর সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত।

পরিমল বিশ্বাস(যশোর জেলা) প্রতিনিধিঃ কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের পক্ষ থেকে আজ ২৮ শে ফেব্রুয়ারি রোজ শুক্রবার সকাল ১০:৩০ মিনিটে ও ১১:৩০ মিনিটে যশোর জেলার, বাঘারপাড়া উপজেলার,বন্দবিলা ইউনিয়নের বড় খুদড়া গ্রামেরও যশোর সদরের লেবুতলা ইউনিয়নের,আগ্রাইল গ্রামের সকল সনাতনী সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীর সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত করা হয়েছে !

সেখানে কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের লক্ষ, উদ্দ্যেশ্য ও মৌলিক কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা করা হয় ! এবং সেখানে দুইটা সনাতনী গীতা স্কুল প্রতিষ্ঠা করা হয় ।
 অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান নির্বাহী শ্রী তপন কুমার বিশ্বাস ও কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের কেন্দ্রীয় কমেটির সভাপতি শুভ কুমার রায় প্রণয় । আরো উপস্তিত ছিলেন কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের কেন্দ্রীয় কমেটির সম্মানীয় সদস্য শ্রী সজিব কুমার বিশ্বাস,শ্রী তুষার কুমার বিশ্বাস, শ্রী হৃদয় কুমার বিশ্বাস, শ্রী অভিজিৎ বিশ্বাস, শ্রী হৃত্তিক রায়, শ্রী অন্তর রায়, শ্রী হৃদয় বিশ্বাস, শ্রী মিল্টন কুমার বিশ্বাস, শ্রী দিপংকর মিত্র  সহ আরো অনেকে ।

পরিচয় পর্ব শেষে আমাদের সম্মানীত স্যার এর অনুমিত নিয়ে কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শুভ কুমার রায় প্রণয় মূল আলোচনা শুরু করেন । তিনি বলেন সকলের মাঝে সনাতনী জ্ঞান প্রচারের জন্য আজ উপস্থিত হয়েছি কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের কেন্দ্রীয় কমেটির সকল সদস্যদের নিয়ে ! সকল সংকীর্ণতা ও কুসংস্কার মুক্ত হয়ে সকলের মধ্য সনাতনী জ্ঞান প্রচার ও সনাতনী সমাজের মধ্যে ঐক্য ও বন্ধু সুলভ সম্পর্ক গড়ে তোলায় কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের মূল লক্ষ্য ।

 শুভ কুমার রায় প্রণয় বলেন বর্তমানে সনাতনী সমাজের দিকে লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে যে,এ সমাজের ৯০% লোক ধর্ম সম্পর্কে অজ্ঞ মানে ধর্ম সম্পর্কে কিছুই জানে না । অনেক কুসংস্কার ও গোড়ামি নিয়ে এখনো অনেক লোক আমাদের এই সমাজটাকে আবদ্ধ করে রেখেছে । যার কারণে আমাদের সমাজটার ঐক্য বিভ্রান্তির পথে ।এসব কিছুই ধর্ম সম্পর্কে কিছু না জানার জন্যই হচ্ছে। তিন বলেন

★ আমরা জানিনা কেনো আমরা এই পৃথিবীতে এসেছি?
★আমরা জানিনা আমাদের নিত্যকর্ম কী?
★আমরা জানিনা কেনো আমরা মূর্তি পূজা করি?
★আমরা জানি না আমাদের সূচি কয়টি এবং এর কার্যপ্রণালীই বা কী?
★আমরা পারি না একটি গীতার শ্লোক বলতে ?
★আমরা পারি না গীতা পাঠ করতে ?
★মূল কথা আমরা ধর্ম সম্পর্কে কিছুই জানি না..?
→এ থেকে পরিত্রাণ পাবার জন্য ধর্ম সম্পর্কে জানতে ও জানানোর জন্য কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘ কিছু কার্যক্রম নিয়ে সকলকে সঙ্গে নিয়ে অগ্রসর হতে চাই ।
সেই উদ্দেশ্যে সাধনের জন্য কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের কেন্দ্রীয় কমেটির সভাপতি শুভ কুমার রায় প্রণয় সকলকে কৃষ্ণ কানণ এর সাথে থাকার আহবান জানান । আর তার সাথে সনাতনী সকল মেয়েরা যাতে সমাজে নিভয়ে এবং সম্মানের সাথে চলাফেরা করতে পারে সেই জন্য কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের শাখা কমেটি (নবরাত্রি) কমেটিতে অংশগ্রহণ করার আহবান জানিয়ে তার আলোচনা শেষ করে এবং তারপর কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান নির্বাহী শ্রী তপন কুমার বিশ্বাস
কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের লক্ষ, উদ্দ্যেশ্য ও মৌলিক কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা করে ।
তারপর তপন বিশ্বাস লক্ষ, উদ্দ্যেশ্য ও মৌলিক কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা করা শুরু করেন । তিনি প্রথমে ১০টি বিষয়ে আলোচনা করেন  সেগুলো হলোঃ

১/এটি একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক সংগঠন ।
২/সত্য ধর্মের প্রচার ও সকলের মাঝে সনাতনী জ্ঞান প্রচারের জন্য গীতা স্কুল প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা করাই এ সংঘের মূল লক্ষ্য ।
৩/সনাতনী সমাজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা । ধর্মন্তর রোধ (বন্ধ) করার প্রচেষ্টা ।
৪/সনাতন ধর্মে যে সকল ঐতিহ্য হারিয়ে যাচ্ছে এবং যে সকল বর্তমানে টিকে আছে তা রক্ষনাবেক্ষনের দায়িক্ত নেওয়া ।
৫/সমাজের বিভিন্ন অবৈধ ও অনৈতিক কার্যকলাপের বিপক্ষে কাজ করা ।
৬/প্রতিটা গ্রামে সনাতন বিদ্যানিকেতন বা গীতা স্কুল প্রতিষ্ঠা করা ।
৭/সকল ছাত্র/ছাত্রীদের মাঝে বিনামূল্যে ধর্মীয় শিক্ষার সকল উপকরণ প্রদান করা ।
৮/নির্যাতিত সনাতন সম্প্রদায়ের পক্ষে প্রতিবাদ মূলক কর্মসূচি পালন করা।
৯/সকলকে সাবলম্বী করার জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা ।
১০/সকলের মাঝে প্রয়োজন অনুযায়ী সেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি চালু করা।
এই ১০ টি বিষয়ে আলোচনা শেষে সকলের উদ্দেশ্য তিনি কিছু দিকনির্দেশনা প্রদান করে আলোচনা শেষ করে। এবং কৃষ্ণ কানণ সনাতনী সংঘের আয়োজনে উক্ত গ্রাম গুলোতে সনাতনী বিদ্যানিকেতনে শুভ উদ্ভোধন করেন ।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন