কৃষ্ণপক্ষের চতুর্দশী তিথিতে শিব ব্রত পালন - অনলাইন মঠবা‌ড়িয়া সেবা

শিরোনাম

"সত্য প্রকা‌শে আমরা"

Post Top Ad

Wikipedia

সার্চ ফলাফল

২২ ফেব, ২০২০

কৃষ্ণপক্ষের চতুর্দশী তিথিতে শিব ব্রত পালন

পরিমল বিশ্বাস(যশোর জেলা)প্রতিনিধিঃ  ২১শে ফেব্রুয়ারি ২০২০ইং (৮ ই ফল্গুন ১৪২৬) রোজ   শক্রবার শুভ শিবরাত্রি। শিব ব্রত পালন করা হয় কৃষ্ণপক্ষের চতুর্দশী তিথিতে। শিব ব্রত পালনের উদ্দেশ্য অন্ধকার আর অজ্ঞতা দূর করার জন্য। শিবলিঙ্গে গঙ্গাজল, বেলপাতা ও ফুল দিয়ে পূজা করা হয় । মাগুরা জেলার শালিখা উপজেলার আড়পাড়ার টিওরখালী পঞ্চপল্লী মহা শশ্মান কালী মন্দিরে আজ সকাল থেকে শিব পূজা শুরু হয়েছে। শিব পূজা চলবে আজ রাত ১.৩০টা পর্যন্ত এবং শনিবার ধর্মীয় আলোচনা সভা হয় । ভক্তরা শক্রবার সকাল থেকে শিব লিঙ্গকে দুধ, গঙ্গাজল ও ঘি দিয়ে স্নান করাচ্ছেন।

শিবলিঙ্গ পূজার বিষয় জানতে চেয়েছিলাম ভাটয়াইল গ্রামের  শিক্ষার্থী  পার্থ বিশ্বাস এর কাছে তিনি বলেন,
আমরা দেখি অনেক শিব মন্দিরে শিবলিঙ্গ পূজা হয়, পুরোহিত ধ্যানমগ্নভাবে পূজা করে থাকেন। কিন্তু পুরোহিত ছাড়া অন্য কেহ শিবলিঙ্গ পূজার মন্ত্র জানে না বা পাঠও করে না,তাই আমরা ধর্মীয় শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়ে থাকি।

কেউ কিছু জিজ্ঞেস করলে এর সদুত্তর দিতে পারি না। ধর্মীয় অনুশাসন থেকে বঞ্চিত থেকেই আমরা দেবদেবীর পূজা অর্চনা করে থাকি।
শিবলিঙ্গ পূজার কয়েকটি মন্ত্র দেওয়া হলো। তবে যেকোনো দেবদেবীর পূজার প্রণামি মন্ত্র, পুষ্পাঞ্জলি মন্ত্র সকল হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জানা দরকার বলে আমি মনে করি।

তাই শিবলিঙ্গ পূজার কয়েকটি মন্ত্র  লিপিবদ্ধ করলাম। সংগ্রহ করেছি শিব পুরাণ থেকে।
(মন্ত্রপাঠ সহ পূজা)
হাতের তালুতে দু-এক ফোঁটা জল নিয়ে ‘ওঁ বিষ্ণু’ মন্ত্রে পান করবেন। মোট তিন বার এইভাবে জল পান করতে হবে। তারপর করজোড়ে বলবেন—
ওঁ তদ্বিষ্ণোঃ পরমং পদং সদা পশ্যন্তি সূরয়ঃ দিবীব চক্ষুরাততম্।
ওঁ অপবিত্রঃ পবিত্রো বা সর্বাবস্থাং গতোঽপি বা।
যঃ স্মরেৎ পুণ্ডরীকাক্ষং স বাহ্যাভ্যন্তরঃ শুচিঃ।।
তারপর পবিত্র বাদ্য ঘণ্টা বাজাতে বাজাতে স্বস্তিবাচন করবেন—
ওঁ কর্তব্যেঽস্মিন্ শ্রীশিবপূজাকর্মণি ওঁ পূণ্যাহং ভবন্তো ব্রুবন্তু।
ওঁ পূণ্যাহং ওঁ পূণ্যাহং ওঁ পূণ্যাহং।
ওঁ কর্তব্যেঽস্মিন্ শ্রীশিবপূজাকর্মণি ওঁ স্বস্তি ভবন্তো ব্রুবন্তু।
ওঁ স্বস্তি ওঁ স্বস্তি ওঁ স্বস্তি।
ওঁ কর্তব্যেঽস্মিন্ শ্রীশিবপূজাকর্মণি ওঁ ঋদ্ধিং ভবন্তো ব্রুবন্তু।
ওঁ ঋদ্ধতাম্ ওঁ ঋদ্ধতাম্ ওঁ ঋদ্ধতাম্।
ওঁ স্বস্তি ন ইন্দ্রো বৃদ্ধশ্রবাঃ স্বস্তি নঃ পূষা বিশ্ববেদাঃ।
স্বস্তি নস্তার্ক্ষ্যো অরিষ্টনেমিঃ স্বস্তি নো বৃহস্পতির্দধাতু।
ওঁ স্বস্তি ওঁ স্বস্তি ওঁ স্বস্তি।
এরপর হাত জোড় করে বলবেন—
ওঁ সূর্যঃ সোমো যমঃ কালঃ সন্ধ্যে ভূতান্যহঃ ক্ষপা।
পবনো দিক্পতির্ভূমিরাকাশং খচরামরাঃ।
ব্রাহ্মং শাসনমাস্থায় কল্পধ্বমিহ সন্নিধিম্।।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন